Ticker

6/recent/ticker-posts

কিডনি রোগীর খাদ্য তালিকা

কিডনি রোগীর খাদ্য তালিকা


 কিডনি রোগীর খাদ্য তালিকা

মানবদেহের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ হচ্ছে কিডনি।  আমাদের মানবদেহের এই অঙ্গের কার্যক্রমের যদি কোন সমস্যা সৃষ্টি হয় তাহলে শরীরে অনেক জটিলতা তৈরি হতে পারে। আমাদের চারপাশে কিডনি রোগের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে।  তবে যেসব কারণেই এই কিডনির সমস্যা বা দীর্ঘনিয়াদি কিডনি রোগের সমস্যা হোক না কেন তার একমাত্র চিকিৎসা হচ্ছে সঠিক পথ্য। 

সঠিক পথ্য গ্রহন করার ফলেই এবং একটু সচেতনতার মাধ্যমে কিডনি সুস্থ রাখা সম্ভব। এজন্য আমাদের সবাইকে যথাযথ খাদ্য তালিকা মেনে চলতে হবে। আর যথাযথ খাদ্য তালিকা মেনে চলার মাধ্যমে কিডনির উপর তেমন কোন চাপ পড়বে না।

সূচিপত্র :

  • কিডনি রোগীর খাদ্য তালিকা
  • কিডনি রোগীর জন্য সঠিক খাবার নির্বাচনের প্রক্রিয়া
  • কিডনি রোগীর জন্য সেরা ১৫ একটি খাবারের তালিকা 
  • কিডনি রোগীর জন্য যেসব খাবার পরিহার করা উচিত


কিডনি রোগীর জন্য সঠিক খাবার নির্বাচনের প্রক্রিয়া


কিডনি রোগীর খাবার নির্বাচনের জন্য কিছু প্রক্রিয়া অবলম্বন করলে ভালো ফল পাওয়া যায়। চলুন এবার সেসব প্রক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।  


আমাদের এমন সব খাবার নির্বাচন করতে হবে যেসব খাবারে কম লবণ এবং সোডিয়াম রয়েছে। তাছাড়া কম ফসফরাস যুক্ত যেসব খাবার সেগুলো নির্বাচন করা যেতে পারে। সাথে রোগীকে বেশি পরিমান তরল পানীয় পান করাতে হবে। পাশাপাশি সঠিক পরিমাণে পটাশিয়ামযুক্ত খাবারগুলো বেছে নিয়ে রোগীকে দিতে হবে।

পটাশিয়ামের পাশাপাশি সঠিক পরিমাণ ও সঠিক ধরনের প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার বেছে নিতে হবে। আমাদের হার্ট যেন সুস্থ থাকে তার জন্য অবশ্যই স্বাস্থ্যকর খাবার বেছে নিয়ে তা গ্রহণ করতে হবে। অ্যালকোহল জাতীয় যেসব খাবার রয়েছে সেগুলো সীমাবদ্ধ করতে হবে। চর্বির ক্ষেত্রে সঠিক ধরনের চর্বিযুক্ত খাবার নির্বাচন এবং গ্রহণ করতে হবে।

এমন ধরনের খাবার নির্বাচন করতে হবে যেখানে খাদ্যর ক্যালোরি সঠিক পরিমাণে বিদ্যমান। আমাদের পাশে যেসব বোতল জাতীয় তরল পানীয় পণ্য পাওয়া যায় সেগুলো পান করা সীমিত করতে হবে। নুনতা খাবার গুলো এড়িয়ে চলাই ভালো।  শস্য জাতীয় যেসব কার্বোহাইডেট খাবার রয়েছে তা অবশ্যই গ্রহণ করতে হবে। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য খাদ্য তালিকা যে পদ্ধতি সেটা মেনে চলা উচিত।


আরো পড়ুন কিডনিতে পাথর হলে করণীয় সমূহ কি?


কিডনি রোগীর জন্য সেরা ১৫ একটি খাবারের তালিকা 


আনারস এই খাবারটি কিডনি রোগীদের জন্য খুবই উপযুক্ত একটি খাবার।  আনারসের মধ্যে রয়েছে সোডিয়াম, পটাশিয়াম ও ফসফরাস। 


ফুলকপি ফুল কপিতেও রয়েছে সোডিয়াম ,পটাশিয়াম ও ফসফরাস। ১২৪ রান্না করা  ফুলকপিতে পাওয়া যায় সোডিয়াম ১৯ মিলিগ্রাম, পটাসিয়াম ১৭৬ মিলিগ্রাম ,ফসফরাস ৪০ মিলিগ্রাম। 


পালং শাক পালং শাক হচ্ছে সবুজ জাতীয় শাক।  যাতে রয়েছে পটাশিয়াম ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন এ, সি, কে ইত্যাদি সহ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং এর পুষ্টিমানও অনেক বেশি।  এটা ফাইবারের জন্য ভালো একটি উৎস। ভিটামিন এবং খনিজ সমৃদ্ধ যার জন্য কিডনির স্বাস্থ্যর পক্ষে খুবই ভালো একটি খাবার হলো পালং শাক। 


রসুন কিডনি পরিষ্কার রাখার জন্য রসুন খুবই দারুণ উপকারী একটি খাবার। কারণ রসুন খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের শরীর থেকে টক্সিন দূর  হতে সাহায্য করে এবং শরীরের রক্ত প্রবাহে কেউ উৎসাহিত করে। তাই রসুনে রয়েছে চমৎকার ও বিশ্লেষ্য স্বাস্থ্য হতে পারে। 


মটরশুঁটি স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এরকম বেশ কয়েকটি পুষ্টি জন্য দুর্দান্ত একটি উৎস। মটরশুটিতে রয়েছে ফাইবার ,প্রোটিন এবং ম্যাগনেসিয়াম। পাশাপাশি এতে রয়েছে স্যাপোনিন নামক একটি পদার্থ, যা আমাদের কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে থাকে। তাই মটরশুঁটি কিডনি রোগের জন্য খুবই ভালো একটি খাবার। 


তরমুজ তরমুজ হচ্ছে খুবই সুস্বাদু একটি ফল, যা আমাদের কিডনির জন্যেও অনেক ভালো। তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ জলজ উপাদান ,যা আপনার কিডনি কে  হাইড্রেটেড রাখতে সহায়তা করে এবং সকল ধরনের টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে। তাছাড়া তরমুজ হচ্ছে পটাশিয়ামের একটি ভালো উৎস। তরমুজ আমাদের শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে এবং কিডনিকে সঠিকভাবে কাজ করতে সহায়তা করে। তাই আপনার কিডনি পরিষ্কার এবং সুস্থ রাখার জন্য নিয়মিত তরমুজ খেতে পারেন। 


লেবু হচ্ছে একটি ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল।  এই ভিটামিন আমাদের শরীরের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করে। লেবুতে রয়েছে সাইট্রিক এসিড আর এই এসিড আমাদের কিডনিতে পাথর ভাঙতে সাহায্য করে এবং পাথর গঠনেও বাধা দেয়। 


ক্রানবেরি হচ্ছে এমন একটি খাবার যা প্রায় সকল কিডনি রোগে আক্রান্ত লোকদেরকে খাওয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়ে থাকে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে এন্টি এক্সিডেন্ট ,আর এই এন্টিঅক্সিডেন্ট কিডনিকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে অনেক বেশি সহায়তা করে। তাছাড়া এটাতে এমন এক যৌগ রয়েছে যেটা আমাদের মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধে অনেক বেশি সহায়তা করতে পারে। আর মূত্রনালীর সংক্রমণ কিডনি সমস্যার একটি সাধারণ কারণ।

 

কুমড়োর বীজ এটা ম্যাগনেসিয়াম এর একটি অসাধারণ উৎস। এটা আমাদের কিডনির স্বাস্থ্যের জন্য অনেক বেশি অপরিহার্য। এখানে ম্যাগনেসিয়ামের পাশাপাশি রয়েছে পটাশিয়াম ,যা আমাদের শরীরের ইলেকট্রোলাইট গুলোকে ভারসাম্য রাখতে অনেক সহায়তা করে থাকে। তাছাড়া এটা ফাইবারের একটি ভালো উৎস।,আর এটা খাওয়ার ফলে আমাদের শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিতে সাহায্য করে থাকে। 


আপেল হচ্ছে ফাইবারের একটি বড় উৎস, আপেল আমাদের কিডনিকে পরিষ্কার রাখতে সহায়তা করে। আপেলে রয়েছে কোয়ারসেটিন নামক একটি এন্টিঅক্সিডেন্ট।  এটা খাওয়ার ফলে কিডনির কোষগুলোকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। তাই আপেল কিডনি রোগীদের জন্য অনেক ভালো একটি খাবার।

 

বাঁধাকপি সবজির মধ্যে বাঁধাকপিও অনেক বেশি উপকারী কিডনি রোগীদের জন্যে।  আর বাঁধাকপিতে রয়েছে নানা ধরনের ভিটামিন ও খনিজ। পাশাপাশি এই খাবারে থাকে ভিটামিন সি, বি৬, ফোলেট, ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি।  কিডনিকে  সুস্থ রাখতে বাঁধাকপি নিয়মিত খেতে পারেন।  বাঁধাকপিতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফাইবার আর এই ফাইবার আমাদের কিডনির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 


ডিমের সাদা অংশ একটি ডিমের সাদা অংশের প্রায় ৬ গ্রাম প্রোটিন থাকে। আর এটার বায়োলজিক্যাল ভ্যালু অনেক বেশি অর্থাৎ শরীরে ডিমের সাদা অংশের প্রোটিন সহজেই গৃহীত হয়। 


ভুট্টা ভুট্টা তে থাকে অনেক বেশি কার্বোহাইড্রেট ,তাই আপনার শরীরের শক্তির প্রয়োজনীয়তার জন্য ভুট্টা খেতে পারেন। আর এটাতে তেমন একটা প্রোটিন নেই যার ফলে ভুট্টা খাওয়ার কারণে কিডনিতে তেমন একটা সমস্যা হয় না বললেই চলে।


শালগম শালগম কিডনি রোগীদের জন্য খুবই ভালো একটি খাবার আধা কাপ রান্না করা শালগমে  থাকে সোডিয়াম ১২.৫ মিলিগ্রাম , পটাশিয়াম ১৩৮ মিলিগ্রাম ,ফসফরাস ১২ মিলিগ্রাম। 


ব্লুবেরি এটা কিডনির জন্য অনেক বেশি উপকারী একটি খাবার। এটা খাওয়ার ফলে আপনার কিডনিকে পরিষ্কার করতে অনেক সহায়তা করে।  ব্লুবেরি থাকা এন্টিঅক্সিডেন্ট গুলো আপনার কিডনিকে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে থাকে। পাশাপাশি উচ্চ পটাশিয়াম গুলো কেউ কাজ করতে অনেক বেশি সাহায্য করে। প্রতিদিন এক মুঠো ব্লুবেরি খাওয়ার ফলে কিডনির ক্লিনজিং ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায়। তাই আপনি প্রতিদিন ব্লুবেরি খেতে পারেন।


কিডনি রোগীর জন্য যেসব খাবার পরিহার করা উচিত


কিছু খাবার রয়েছে যা আমাদের কিডনির জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকারক এবং যদি আপনার কিডনি রোগ থাকে তাহলে অবশ্যই এগুলো এড়িয়ে যাওয়া উচিত।


  • তার মধ্যে রয়েছে অত্যধিক লবণ জাতীয় খাবার। এগুলো আপনার উচ্চ রক্তচাপ এবং তরল ধরে রাখার কারণে কিডনির ক্ষতি করতে পারে। কেননা একজন কিডনি রোগীর দৈনিক দুই হাজার মিলিগ্রামের বেশি স্টেডিয়াম খাওয়া উচিত নয়। 
  • তাছাড়া রয়েছে প্রক্রিয়াজাত মাংস। প্রক্রিয়াজাত প্রতিটি খাবারই থাকে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম এবং অস্বাস্থ্যকর চর্বি যা আপনাদের কিডনিকে ক্ষতি করতে পারে।
  • চিনিজাতীয়  খাবারগুলো এড়িয়ে চলা উচিত কারন চিনি আমাদের ওজন বৃদ্ধি এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। যা একজন কিডনি রোগীর জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকারক হতে পারে। 
  • অ্যালকোহল জাতীয় খাবারও কিডনির জন্য অনেক বেশি ক্ষতি করে এবং অ্যালকোহল জাতীয় খাবার খাওয়ার ফলে দীর্ঘস্থায়ী কিডনি রোগ হতে পারে।  আমাদের এই খাবারগুলো সব সময় পরিহার করা উচিত। 


চিকিৎসকদের মতে প্রতিটি কিডনি রোগীর জন্য খাবারের তালিকা  সবসময় আলাদা রকম হবে। আর এই ডায়েট অবশ্যই রোগীর শরীরের উপর নির্ভর করে থাকে। তবে কিডনি রোগীর ডায়েট চার্ট নিয়মিত আপডেট করা প্রয়োজন।


Post a Comment

0 Comments