Ticker

6/recent/ticker-posts

মাথা ব্যথা দূর করার উপায়



মাথা ব্যথা দূর করার উপায়

মাথাব্যথা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের বেশ যন্ত্রণার একটি বিষয়। মাথাব্যথা থাকার কারণে আমরা আমাদের স্বাভাবিক যে কাজগুলো এগুলো ঠিকমতো করতে পারি না বা আমাদের কাজে অনেক ব্যাঘাত ঘটায়। বিভিন্ন কারণে আমাদের মাথা ব্যথা হয়ে থাকে।

অতিরিক্ত কাজের প্রেসার বা খুব বেশি চিন্তা থেকে অথবা শারীরিক জটিলতা থেকেও আমাদের মাথা ব্যথা হতে পারে। এছাড়াও আরো নানা ধরনের কারণ আছে যেগুলো মাথাব্যথা কারণ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকে। তার মধ্যে রয়েছে দুশ্চিন্তা, মাইগ্রেন, খুব বেশি ধূমপান করা, ব্যথা নাশক ওষুধের অতিরিক্ত ব্যবহার ,শরীরের পানি শূন্যতা ইত্যাদি। 

এইসব কারণে মাথাব্যথা হওয়ার ফলে আমরা এই ব্যথা থেকে দ্রুত মুক্তি পাওয়ার জন্য ব্যথা নাশক ওষুধ সেবন করে থাকি অনেকেই। তবে ব্যথা সারানোর জন্য ওষুধ সব সময় সেবন না করাই ভালো। সেক্ষেত্রে যদি  আপনার এই মাথা ব্যাথার সমস্যা হর হামেশাই ঘটে থাকে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করতে পারেন। আমরা আমাদের এই ব্লকটিতে মাথাব্যথার বিভিন্ন কারণ এবং মাথা ব্যাথা দূর করার বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানবো।


সূচিপত্র:

মাথা ব্যথা দূর করার উপায়
গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার কারণ
চোখের কারণে মাথা ব্যথা
প্রতিদিন মাথা ব্যথা কেন হয়
বাচ্চাদের মাথা ব্যথার কারণ
হঠাৎ মাথা ব্যথা হলে করণীয়


গর্ভাবস্থায় মাথা ব্যথার কারণ

গর্ভবতী অবস্থায় গর্ভবতী মায়েরা বিভিন্ন কারণে তীব্র মাথাব্যথা বা সাধারণ মাথাব্যথায় ভুগে থাকে। এই মাথাব্যথা বিভিন্ন ধরনের কারণে হতে পারে। যেমন:

  • হরমোনের পরিবর্তনের কারণে গর্ভবতী মায়েদের মাথাব্যথা হতে পারে অথবা ক্ষুধা লাগা বা অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকার ফলেও মাথা ব্যথা হতে পারে। অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকার ফলে রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ কমে যায় ,যার ফলে মাথা ব্যথা হয়ে থাকে।
  • যদি গর্ভবতী মায়েদের পানি শূন্যতা হয়ে থাকে সেই ক্ষেত্রে মাথাব্যথা হতে পারে। বিভিন্ন ধরনের মানসিক চাপ, ক্লান্তি ও পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবেও মাথাব্যথা হতে পারে।
  • যদি গর্ভবতী মায়েদের দৃষ্টি শক্তি কোন সমস্যা থাকে সেই সমস্যা থেকেও মাথাব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • যদি গর্ভবতী মায়েরা অস্বাস্থ্যকর দেহ ভঙ্গিতে শুয়ে থাকেন কিংবা বসে অথবা দাঁড়িয়ে থাকেন এর ফলেও মাথাব্যথা হতে পারে।
  • অনেকক্ষণ ধরে মোবাইল চালানো ,ল্যাপটপ অথবা টিভি দিকে  তাকিয়ে থাকা ইত্যাদির কারণে চোখের উপর চাপ পড়ে।  আর এই চোখের উপর চাপ পড়ার কারণে মাথাব্যথা হয়ে থাকে।
  • তাছাড়া কেফিন যুক্ত খাবার ও পানীয় অনেক বেশি পরিমাণে পান করার ফলেও গর্ভবতী মায়েদের মাথাব্যথা হতে পারে। তাছাড়া কিছু মারাত্মক জটিলতার কারণে মাথাব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।


চোখের কারণে মাথা ব্যথা

আমাদের বেশিরভাগ মানুষ মনে করে থাকেন যে শুধুমাত্র ব্রেনের সমস্যার কারণেই আমাদের মাথা ব্যথা হয়ে থাকে। এই ধারণাটি সম্পূর্ণভাবে সঠিক নয়। স্নায়বিক কারণ ছাড়াও কিন্তু আমাদের মাথা ব্যথা হতে পারে। তবে তার পরিমাণ খুব বেশি নয় তবে চোখের বিভিন্ন সমস্যার কারণে আমাদের মাথা ব্যথা হতে পারে।


আরো পড়ুন মাথা ব্যথা কমানোর ঘরোয়া উপায়


সেই ক্ষেত্রে যখন আমরা একটানা চোখ দিয়ে বিভিন্ন কাজ বা ল্যাপটপ অথবা কোন কিছুর দিকে তাকিয়ে থাকি তখন চোখের উপর অনেক বেশি প্রেসার বা চাপ পড়ে। যার ফলে আমাদের মাথা ব্যথা হয়ে থাকে। চোখে যদি ক্লান্তি আসে কিংবা চোখ দিয়ে পানি পড়া ,চোখ শুকিয়ে যাওয়া ,চোখে দেখার সমস্যা হওয়া ইত্যাদি কারণে মাথার উপর প্রেসার পড়ে।

তবে কিছুক্ষণ রেস্ট নিলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাছাড়া দীর্ঘক্ষণ ধরে কম্পিউটার বা ল্যাপটপে কাজ করা, মনযোগ দিয়ে অনেক সময় নিয়ে কোন কিছু পড়াশোনা কিংবা গাড়ি চালানো ইত্যাদি কারণেও মাথা বেথা হতে পারে।তাছাড়া চোখের ইনফেকশনের কারণেও মাথা ব্যথার সমস্যা দেখা দেয়।  কন্টাক্ট লেন্স অতিরিক্ত ব্যবহার করার ফলেও অনেক সময় মাথাব্যথা হয়ে থাকে। কম আলোতে পড়ার কারণে মাথা ব্যথা হতে পারে।


প্রতিদিন মাথা ব্যথা কেন হয়

মাথা ব্যথা প্রায় কম বেশি সকলেরই হয়ে থাকে। তবে যদি নিয়মিত মাথা ব্যথা হয় তাহলে প্রতিটি মানুষের জন্যই অবশ্যই এটার বিষয়ে অনেক বেশি সাবধান হতে হবে।  মাথাব্যথার পিছনে নানা ধরনের কারণ থাকতে পারে। কোন সময় মাথাব্যথা নিজেও একটি রোগ হতে পারে। তাই নিয়মিত মাথা ব্যথা হলে প্রতিটি মানুষকে এই বিষয়টি নিয়ে অনেক বেশি সচেতন হতে হবে।

তবে যদি কারো ছয় মাস বা আট মাস বা ১০ মাস পর পর হঠাৎ মাথা ব্যথা হয় তাহলে এই বিষয়টি নিয়ে তেমন আশঙ্কার কোন কারণ নেই। তবে মাঝে মাঝে ব্যথা  কিংবা নিয়মিত মাথা ব্যথা হলে অবশ্যই অনেক বেশি সতর্ক হতে হবে। কেননা এর পিছনেগুরুতর কোন সমস্যা ইঙ্গিত থাকলেও থাকতে পারে। নিয়মিত মাথা ব্যথার পিছনে কি কি কারণ বা কি কি রোগ থাকতে পারে সে বিষয়ে জেনে নেওয়া যাক। 

  • টেনশন হেডেক সাধারণত মাথার পিছনে অংশে টেনশন হেডেক হয়ে থাকে। এই ক্ষেত্রে এটা ঘাড়ে সামান্য উপরে দেখা দেয়। প্রথমে মাথার এই অংশটি অনেক বেশি ভারী হয়ে যায়। তারপর আস্তে আস্তে ব্যথা শুরু হয়। তবে এই রোগের অন্যতম লক্ষণ হচ্ছে ঘাড়  ও গলা শক্ত হয়ে যাওয়া। কিছু কিছু ক্ষেত্রে টেনশন হেডেক কপালেও শুরু হতে পারে। 
  • চোখের কারনে মাথাব্যথা চোখের বিভিন্ন সমস্যা এখন ছোট বয়স থেকেই লক্ষ্য করা যায়। আমাদের চারপাশে দেখা যায় অনেক ছোট শিশুরাও চোখে চশমা ব্যবহার করে।  এ থেকেই বুঝা যায় আমাদের চারপাশে চোখের সমস্যা কি হারে বাড়ছে। তবে চোখের যদি কোন সমস্যা হয় সেই সমস্যার উপসর্গ কেবলমাত্র চোখে আটকে থাকে না। চোখের পাশাপাশি এই সমস্যা মাথা ব্যথাতেও  রূপান্তরিত হতে পারে। এই ক্ষেত্রে কপালের দিকে ব্যথা হয়ে থাকে। তবে এই ব্যথা একটু রেস্ট বা মেসেজ করলে কমে যায়। 
  • সাইনাসের কারণে মাথা ব্যথা সাইনাস হলো আমাদের মাথার ভিতরে থাকার ছোট ছোট বায়ুভর্তি কুঠুরি। এই ছোট ছোট বায়ু ভর্তি কুঠুরি গুলো মাথাকে হালকা রাখতে সহায়তা করে। তবে যখন কোন সংক্রমণের কারণে মাথার ভিতরে এই অংশ প্রদাহ  তৈরি হয় তখন  তীব্র মাথাব্যথা হয়ে থাকে। তবে এই ক্ষেত্রে কানের ব্যথা ,জ্বর, নাক দিয়ে পানি পড়া  ইত্যাদি সমস্যা থাকতে পারে।
  • মাইগ্রেনের সমস্যার কারণে মাথাব্যথা মাইগ্রেন এই সমস্যাটা আমাদের মোটামুটি এখন সকলেরই পরিচিত একটি সমস্যা। এটা একটি এক ধরনের অদ্ভুত টাইপের রোগ।  কেউ যদি এই রোগে আক্রান্ত হয় তাহলে তার যন্ত্রণা শেষ নেই। এই ব্যথা মাথার যেকোনো একটি নির্দিষ্ট অংশে হতে পারে। আবার সেই ব্যথা ধীরে ধীরে চোখেও চলে আসতে পারে। তবে এই ব্যথার প্রতিঘাত  মানুষ ভেদে  ভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।


বাচ্চাদের মাথা ব্যথার কারণ

আমাদের অনেকের শিশুরাই মাঝে মাঝে তীব্র মাথা ব্যথার অভিযোগ করে থাকে অভিভাবকদের কাছে। এইসব তীব্র মাথা ব্যথার কারণে অনেক সময়ই বাচ্চারা বিদ্যালয়ে যেতে চায় না। এসব দেখে আমাদের অভিভাবকরা অনেক ঘাবড়ে যান। আসলে শিশুদের মাথাব্যথার পিছনে বিভিন্ন ধরনের কারণ রয়েছে। 

  • বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় কোন সংগ্রামক রোগ কিংবা জ্বরের কারণে তীব্র মাথাব্যথা হতে পারে।
  • তাছাড়া মাইগ্রেনের সমস্যার কারণেও শিশুদের মাথাব্যথা হতে পারে।মাইগ্রেনের সমস্যার কারণে মাথাব্যথা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেবা নেওয়া উচিত।
  • সাইনোসাইটিসের কারণে শিশুদের মাথাব্যথা হতে পারে। সাইনোসাইটিস হলে শিশুদের ঘন ঘন ঠান্ডা লাগা কিংবা সর্দিতে ভুগতে পারে।
  • তাছাড়া চোখের বিভিন্ন সমস্যার কারণেও বিদ্যালয় গামী  শিশুদের নিয়মিত চক্ষু বিশেষজ্ঞের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। কেননা চোখের সমস্যার কারণে শিশুদের তীব্র মাথা ব্যাথার মত সমস্যা হতে পারে।


হঠাৎ মাথা ব্যথা হলে করণীয়

হঠাৎ করে মাথাব্যথা হয়নি এরকম মানুষ খুঁজে পাওয়া খুবই মুশকিল। আমাদের অনেকেরই হঠাৎ করে মাথাব্যথা করে। মাথা ব্যাথা হলে তা সহজে ছাড়তে চায় না।  যার ফলে আমরা মনোযোগ সহকারে কোন কাজ করতেও পারি না। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় ওষুধ খেয়ে তবেই মাথাব্যথা দূর করতে হয়। তবে এসব পরিস্থিতিতে ওষুধ ছাড়াই আপনি কিভাবে আপনার মাথা ব্যথা দূর করতে পারেন তা সম্পর্কে নিজে আলোচনা করা হলো। 

  • মাথা ব্যথা শুরু হলে রগের দুই পাশে অথবা ঘাড়ে কাছে যদি কিছুক্ষণের জন্য ম্যাসাজ করতে পারেন তাহলে আপনার জন্য খুবই ভালো একটি উপকারী সমাধান। অনেক সময় আমাদের ক্লান্তির কারণেও মাথা ব্যথা হতে পারে। সেই ক্ষেত্রে ম্যাসাজ খুবই কাজে দেয়। ম্যাসাজ করার সময় আপনার বুড়ো আঙ্গুল ও তর্জনী  ব্যবহার করুন যতক্ষণ পর্যন্ত মাথা ব্যথা না কমে ততক্ষণ পর্যন্ত। 
  • যখন আপনার মাথা ব্যথা শুরু হবে তখন চেষ্টা করুন কম আলোতে থাকার জন্য।  যদি আপনি কম্পিউটার ,ল্যাপটপ বা মোবাইল ফোনের সামনে থাকেন তাহলে অবশ্যই এসব থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করুন। যদি এই সময় বাহিরে বের হতে হয় তাহলে ভালো মানের এন্টি গ্লেয়ার  রোদ চশমা ব্যবহার করতে পারেন। 
  • মাথা ব্যথা শুরু হলে আপনার কপালে আর ঘাড়ে গরম সেক দিতে পারেন ঘাড়ে ও কপালে ।গরম সেক দেওয়ার ফলে অনেক আরাম বোধ হয় ।কারো কারো ক্ষেত্রে দেখা যায় ঠান্ডা সেক দিলে অনেক ভালো ফল পায় ।কোন কোন সময় হাত বরফ পানিতে ডুবিয়ে রাখলেও একই রকম ফল পাওয়া যায় ।কেননা ঠান্ডায় রক্তনালীগুলো সংকুচিত হওয়ার ফলে  আপনাকে আরাম দেবে ।
  • মাথা ব্যথা শুরু হলে আপনি আপনার পা গরম পানিতে ডুবিয়ে রাখতে পারেন ।এই ক্ষেত্রে যুক্তিটা হলো গরম পানিতে পা ডুবিয়ে রাখলে সেখানে দ্রুত রক্ত সঞ্চালন হয় ।যার ফলে আপনার মাথার উপর রক্ত সঞ্চালনের প্রেশারটা কমে যায। এতে করে আপনার মাথাব্যথা পরিমাণও কমে যাবে ।তাই মাথা ব্যথা হলে গরম পানিতে আপনার পা ডুবিয়ে রাখতে পারেন ।
  • মাথাব্যথা আরেকটি কার্যকরী পদ্ধতি হলো চা বা কফি পান করা ।কেননা চা বা কফিতে উপস্থিত ক্যাফেইন  আপনার মাথা ব্যথা কমাতে অনেক বেশি কাজে দেয় ।তবে যারা খুব ঘন ঘন চা-কফি খেতে অভ্যস্ত তাদের ক্ষেত্রে এই সুবিধাটা তেমন একটা পাবেন না ।আদা আর লবঙ্গ দিয়ে কড়া করে কালো চা তৈরি করে খাওয়ার মাধ্যমেও অনেক আরাম পাবেন ।
মাথাব্যথা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের একটি জটিল সমস্যা। এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণের জন্য আমাদের সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।


Post a Comment

0 Comments